৬০০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেন্সর নিয়ে কাজ করছে স্যামসাং || TIPSGURUBD.COM

0

 

স্মার্টফোন ক্যামেরা নিয়ে কোম্পানিগুলো যেনো মেগাপিক্সেলের দৌড়ে নেমেছে। প্রতিটি স্মার্টফোন নির্মাতা চেষ্টা করছে সর্বোচ্চ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা তাদের ফোনে বসাতে। তাদের সাথে তাল মিলিয়ে সেন্সর নির্মাতারাও একই চেষ্টা করছেন। আমরা ইতিমধ্যেই ৪৮ মেগাপিক্সেল, ৬৪ মেগাপিক্সেল ও ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা ফোন দেখেছি। তবে এবার শোনা যাচ্ছে, নিজেদের রেকর্ড ভেঙেই বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইমেজ সেন্সর, ৬০০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেন্সর নিয়ে কাজ করছে দক্ষিণ কোরীয় টেক জায়ান্ট স্যামসাং।

হ্যাঁ, ঠিকই পড়েছেন! স্যামসাং জানিয়েছে তারা ৬০০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেন্সর ডেভেলপ করছে, যা রীতিমতো চমকে দিবে যে কাউকেই। জানা যায় ৬০০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেন্সর মানুষের চোখের থেকে বেশি রেজ্যুলেশন সমৃদ্ধ। কোম্পানির এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং সেন্সর ব্যবসার প্রধান ইয়ংগিন পার্ক জানিয়েছে, মানুষের চোখ ৫০০ রেজ্যুলেশন পর্যন্ত নিতে পারে। তাছাড়া একজন টিপস্টার দাবি করেছেন, স্যামসাং এখন ৬০০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা সেন্সর ফোনে বসানোর পরিকল্পনা করছে।

 

এদিকে সম্প্রতি স্যামসাংয়ের একটি অভ্যন্তরীণ একটি কনফারেন্স এর স্লাইড লিক হয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে বাজারে ৪’কে এবং ৮’কে ভিডিও রেকর্ডিং জনপ্রিয় হয়ে ওঠায় স্যামসাং এর উচিত আরও বড় আকৃতির সেন্সর ব্যবহার করা যাতে কোয়ালিটি খারাপ না করেই ভিডিও ডিজিটাল জুম করা সম্ভব হয়। তবে এত বড় সেন্সরের কিছু প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতাও আছে। পিক্সেল সাইজ ০.৮ মাইক্রন ধরলে ৬০০ মেগাপিক্সেলের সেন্সরের আকার হওয়ার কথা ১/০.৫৭ ইঞ্চি যা একটি ফোনের পিছনের প্রায় ১২% দখল করে ফেলবে। তাছাড়া ক্যামেরা বাম্পের আকারও প্রায় ২২ মিলিমিটার হয়ে যাবে।

এছাড়া এখনও পর্যন্ত ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেন্সর কে বেস্ট বলা হয়। তবে কোম্পানি শীঘ্রই ১৫০ মেগাপিক্সেল সেন্সর বাজারে আনবে। স্যামসাংয়ের ক্যামেরা সেন্সর সম্পর্কিত বড় বড় পরিকল্পনা রয়েছে। কোম্পানি ভবিষ্যতে এমন একটি সেন্সর তৈরি করার বিষয়েও ভাবছে, যা গন্ধ এবং স্বাদও বুঝতে পারবে। স্মার্টফোন ছাড়াও কোম্পানি তাদের উচ্চ-রেজোলিউশন ক্যামেরা সেন্সর অটোনোমাস যানবাহন, ড্রোন এবং অন্যান্য ইন্টারনেট অফ থিংগস এ ব্যবহার করবে।

বন্ধুদের সাথে নিউজটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমরা অনুপ্রাণিত হব 🙂

Leave A Reply

Your email address will not be published.